সম্পূর্ণ তথ্য হনুমান চালিশা – Bengali Hanuman Chalisa Lyrics in 2024

Share this article :

হনুমান চালিসা একটি ভক্তিমূলক শ্লোক। এই ভক্তিমূলক শ্লোকটি পাঠ করে আপনি আপনার ইচ্ছা পূরণ করতে পারেন। আপনি আমাদের এই পোস্ট থেকে  Bengali Hanuman Chalisa Lyrics ডাউনলোড করতে পারেন, যার লিঙ্ক নীচে দেওয়া আছে।

এছাড়াও, আপনি নীচে দেওয়া আর্টিকেল থেকে জানতে পারবেন কীভাবে হনুমান চালিসা পাঠ করবেন এবং হনুমান চালিসা পাঠ করলে কী কী উপকার হয়। 

Bengali Hanuman Chalisa Lyrics

এছাড়াও আপনারা চাইলে আমাদের ওয়েবসাইট থেকে হিন্দি ভাষাতেও হনুমান চলিশা (hanuman Chalisa pdf Hindi download) ডাউনলোড করতে পারেন।

Bengali Hanuman Chalisa Lyrics | বাংলা ভাষায় হনুমান চলিশা

দোহা

শ্রী গুরু চরণ সরোজ রজ নিজমন মুকুর সুধারি ।

বরণৌ রঘুবর বিমলযশ জো দাযক ফলচারি ॥

বুদ্ধিহীন তনুজানিকৈ সুমিরৌ পবন কুমার ।

বল বুদ্ধি বিদ্যা দেহু মোহি হরহু কলেশ বিকার ॥

ধ্যানম

গোষ্পদীকৃত বারাশিং মশকীকৃত রাক্ষসম্ ।

রামাযণ মহামালা রত্নং বংদে-(অ)নিলাত্মজম্ ॥

যত্র যত্র রঘুনাথ কীর্তনং তত্র তত্র কৃতমস্তকাংজলিম্ ।

ভাষ্পবারি পরিপূর্ণ লোচনং মারুতিং নমত রাক্ষসাংতকম্ ॥

চৌপাঈ

জয হনুমান জ্ঞান গুণ সাগর ।জয কপীশ তিহু লোক উজাগর ॥ ১ ॥

রামদূত অতুলিত বলধামা ।অংজনি পুত্র পবনসুত নামা ॥ ২ ॥

মহাবীর বিক্রম বজরংগী ।কুমতি নিবার সুমতি কে সংগী ॥৩ ॥

কংচন বরণ বিরাজ সুবেশা ।কানন কুংডল কুংচিত কেশা ॥ ৪॥

হাথবজ্র ঔ ধ্বজা বিরাজৈ ।কাংথে মূংজ জনেবূ সাজৈ ॥ ৫॥

শংকর সুবন কেসরী নংদন ।তেজ প্রতাপ মহাজগ বংদন ॥ ৬ ॥

বিদ্যাবান গুণী অতি চাতুর ।রাম কাজ করিবে কো আতুর ॥ ৭ ॥

প্রভু চরিত্র সুনিবে কো রসিযা ।রামলখন সীতা মন বসিযা ॥ ৮॥

সূক্ষ্ম রূপধরি সিযহি দিখাবা ।বিকট রূপধরি লংক জলাবা ॥ ৯ ॥

ভীম রূপধরি অসুর সংহারে ।রামচংদ্র কে কাজ সংবারে ॥ ১০ ॥

লায সংজীবন লখন জিযাযে ।শ্রী রঘুবীর হরষি উরলাযে ॥ ১১ ॥

রঘুপতি কীন্হী বহুত বডাযী (ঈ) ।তুম মম প্রিয ভরত সম ভাযী ॥ ১২ ॥

সহস্র বদন তুম্হরো যশগাবৈ ।অস কহি শ্রীপতি কংঠ লগাবৈ ॥ ১৩ ॥

সনকাদিক ব্রহ্মাদি মুনীশা ।নারদ শারদ সহিত অহীশা ॥ ১৪ ॥

যম কুবের দিগপাল জহাং তে ।কবি কোবিদ কহি সকে কহাং তে ॥ ১৫ ॥

তুম উপকার সুগ্রীবহি কীন্হা ।রাম মিলায রাজপদ দীন্হা ॥ ১৬ ॥

তুম্হরো মংত্র বিভীষণ মানা ।লংকেশ্বর 

ভযে সব জগ জানা ॥ ১৭ ॥

যুগ সহস্র যোজন পর ভানূ ।লীল্যো তাহি মধুর ফল জানূ ॥ ১৮ ॥

প্রভু মুদ্রিকা মেলি মুখ মাহী ।জলধি লাংঘি গযে অচরজ নাহী ॥ ১৯ ॥

দুর্গম কাজ জগত কে জেতে ।সুগম অনুগ্রহ তুম্হরে তেতে ॥ ২০ ॥

রাম দুআরে তুম রখবারে ।হোত ন আজ্ঞা বিনু পৈসারে ॥ ২১ ॥

সব সুখ লহৈ তুম্হারী শরণা ।তুম রক্ষক কাহূ কো ডর না ॥ ২২ ॥

আপন তেজ সম্হারো আপৈ ।তীনোং লোক হাংক তে কাংপৈ ॥ ২৩ ॥

ভূত পিশাচ নিকট নহি আবৈ ।মহবীর জব নাম সুনাবৈ ॥ ২৪ ॥

নাসৈ রোগ হরৈ সব পীরা ।জপত নিরংতর হনুমত বীরা ॥ ২৫ ॥

সংকট সে হনুমান ছুডাবৈ ।মন ক্রম বচন ধ্যান জো লাবৈ ॥ ২৬ ॥

সব পর রাম তপস্বী রাজা ।তিনকে কাজ সকল তুম সাজা ॥ ২৭ ॥

ঔর মনোরথ জো কোযি লাবৈ ।তাসু অমিত জীবন ফল পাবৈ ॥ ২৮ ॥

চারো যুগ প্রতাপ তুম্হারা ।হৈ প্রসিদ্ধ জগত উজিযারা ॥ ২৯ ॥

সাধু সংত কে তুম রখবারে ।অসুর নিকংদন রাম দুলারে ॥ ৩০॥

অষ্ঠসিদ্ধি নব নিধি কে দাতা ।অস বর দীন্হ জানকী মাতা ॥ ৩১ ॥

রাম রসাযন তুম্হারে পাসা ।সদা রহো রঘুপতি কে দাসা ॥ ৩২ ॥

তুম্হরে ভজন রামকো পাবৈ ।জন্ম জন্ম কে দুখ বিসরাবৈ ॥ ৩৩ ॥

অংত কাল রঘুপতি পুরজাযী ।জহাং জন্ম হরিভক্ত কহাযী ॥ ৩৪ ॥

ঔর দেবতা চিত্ত ন ধরযী ।হনুমত সেযি সর্ব সুখ করযী ॥ ৩৫ ॥

সংকট ক(হ)টৈ মিটৈ সব পীরা ।জো সুমিরৈ হনুমত বল বীরা ॥ ৩৬ ॥

জৈ জৈ জৈ হনুমান গোসাযী ।কৃপা করহু গুরুদেব কী নাযী ॥ ৩৭ ॥

জো শত বার পাঠ কর কোযী ।ছূটহি বংদি মহা সুখ হোযী ॥ ৩৮ ॥

জো যহ পডৈ হনুমান চালীসা ।হোয সিদ্ধি সাখী গৌরীশা ॥ ৩৯ ॥

তুলসীদাস সদা হরি চেরা ।কীজৈ নাথ হৃদয মহ ডেরা ॥ ৪০ ॥

দোহা

পবন তনয সংকট হরণ – মংগল মূরতি রূপ্ ।রাম লখন সীতা সহিত – হৃদয বসহু সুরভূপ্ ॥

সিযাবর রামচংদ্রকী জয । পবনসুত হনুমানকী জয । বোলো ভাযী সব সংতনকী জয ।

Download Hanuman Chalisa Bengali PDF / MP3 | বাংলা ভাষায় ডাউনলোড করুন হনুমান চলিশা PDF / MP3

Bengali Hanuman Chalisa Lyrics

Bengali Hanuman Chalisa Lyrics
Bengali Hanuman Chalisa Lyrics

Hanuman Chalisa Benefits | হনুমান চলিশা পড়ার উপকারিতা 

হনুমানজি আমাদের কলিযুগের একমাত্র জাগ্রত দেবতা। হনুমানজির কৃপায় সকল ঝামেলা ও বিপদ খুব সহজেই দূর হয়ে যায়। আপনি যদি হনুমানজীর আশীর্বাদ পেতে চান, তাহলে প্রতিদিন হনুমান চালিসা পাঠ করলে আপনি সহজেই হনুমানজীর আশীর্বাদ পেতে পারেন।

প্রতিদিন হনুমান চালিসা পাঠ করার সাথে আপনি যদি hanuman Sathika পাঠ করতে পারেন তাহলে আপনি জীবনে অনেক উপকার পাবেন। উপকার গুলি নিচে দেওয়া হলো।

Bengali Hanuman Chalisa Lyrics
Bengali Hanuman Chalisa Lyrics

Related Post : Hanuman Sathika PDF Hindi

১. শনি দেবের কুদৃষ্টি থেকে মুক্তি

হনুমান চালিসা পড়ার প্রথম উপকার হল হনুমান চালিসা শনিজির প্রভাব কমায়।শনিদেবের কুদৃষ্টি এড়াতে হনুমান চালিসা পাঠের বিকল্প নেই। কথিত আছে, হনুমান ভক্তরা শনিদেবের ক্রোধের ধারে কাছেও আসতে পারেন না।

যাদের কুণ্ডলীতে শনির কারণে ক্রমাগত সমস্যা রয়েছে তাদের জীবনে শান্তি ও সমৃদ্ধির জন্য বিশেষ করে শনিবার হনুমান চালিসা পাঠ করা উচিত।

২. ভূত ও প্রেত আত্মা দূরে থাকবে

দ্বিতীয় উপকারিতা, হনুমান চালিসা অশুভ আত্মাদের তাড়িয়ে দেয়। আপনি যদি মনে করেন আপনার জীবন কোনো ভূতের প্রভাব আছে তাহলে হনুমান চালিসা পাঠের কোনো বিকল্প নেই।

এমনটা বিশ্বাস করা হয় যে আপনি যদি রাতে ঘুমানোর সময় নার্ভাস অনুভব করেন তবে আপনার প্রতি রাতে ঘুমানোর আগে অন্তত একবার Hanuman Chalisa পাঠ করা উচিত।

আমাদের বালিশের নীচে হনুমান চালিসা নিয়ে ঘুমানো উচিত, এটি আমাকে খারাপ চিন্তা এবং খারাপ স্বপ্ন থেকে মুক্তি দেবে, এটি আপনার জীবন থেকে খারাপ আত্মাকে দূরে রাখবে।

৩. পাপ থেকে মুক্তি

তৃতীয় লাভ, নিজের কাজের জন্য ক্ষমা চাওয়া আমাদের মধ্যে অনেকেই জেনে বা না জেনে পাপ করে থাকি। হিন্দু শাস্ত্র অনুসারে, পাপের কারণেই আমরা জন্ম-মৃত্যুর চক্রে আটকা পড়েছি।

হনুমান চালিসা পাঠ করলে বর্তমান জন্মের পাপ থেকে মুক্তি পাওয়া যায়।তাই আমাদের জীবনের পাপ থেকে মুক্তি পেতে প্রতিদিন Hanuman Chalisa পাঠ করা উচিত।

৪. বাধা ও যে কোনো সংকট থেকে মুক্তি

চতুর্থ লাভ হল বাধা বা সংকট দূর করতে হনুমান চালিসা। এটি হনুমান চালিসার অন্যতম প্রধান উপকারিতা। হনুমানজির আরেক নাম সংকটমোচন

যখনই যে কোনো ভক্ত কোনো সংকটের সম্মুখীন হন, তখন তিনি যদি হৃদয় দিয়ে হনুমান চালিসা পাঠ করেন, তার সংকট খুব সহজে মিটে যায়। হনুমান চালিসার 38তম অধ্যায়ে বলা হয়েছে–

জো শত বার পাঠ কর কোযী ।

ছূটহি বংদি মহা সুখ হোযী।

মানে এই হনুমান চালিসা একশত বার পাঠ করলে তার সমস্ত বন্ধন মুক্ত হবে এবং তার জীবনে অপার সুখ আসবে। অর্থাৎ তার জীবনে আসা বাধাগুলো খুব সহজে দূর হয়ে যাবে এবং যেকোনো কাজে খুব সহজেই সাফল্য পাওয়া যাবে।

৫. মানসিক চাপ থেকে মুক্তি

পঞ্চম সুবিধা হল হনুমান চালিসা মানসিক চাপ থেকে মুক্তি দেয়। আপনি যদি প্রতিদিন সকালে ঘুম থেকে উঠে হনুমান চালিসা পাঠ করেন তাহলে আপনার দিনটি চাপমুক্ত হবে এবং খুব সহজে কেটে যাবে।

৬. নেতিবাচক চিন্তাভাবনা দূর করে

হনুমান চালিসা নেতিবাচক বা নেতিবাচক চিন্তাভাবনা দূর করে। আপনি কি খুব নেতিবাচক বা নেতিবাচক চিন্তা প্রবণ?তাহলে আপনার রুটিনে কিছু পরিবর্তন আনতে হবে।

সকালে অন্তত একবার হনুমান চালিসা পাঠ করার নিয়ম অনুসরণ করে সংবাদপত্র থেকে দূরে থাকুন। Bengali Hanuman Chalisa Lyrics এই পোস্ট থেকে ডাউনলোড করে আপনি হনুমান চালিসা পাঠ করতে পারেন।

হনুমান চালিসা পাঠ করার পরে, আপনাকে অবশ্যই ধ্যান করতে হবে। ধ্যানের সময়, আপনাকে অবশ্যই ইতিবাচক চিন্তাভাবনা করতে হবে।

আপনি ভাববেন যে আপনি খুব ভাল এবং আপনার আগামী দিনগুলি খুব ভাল যাবে।হনুমান চালিসা দিয়ে আপনার দিন শুরু করুন এবং শেষ করুন এবং আপনি শীঘ্রই দেখতে পাবেন যে নেতিবাচক চিন্তা আপনার জীবন থেকে চলে যাবে।

৭. নিরাপদ যাত্রা

পরবর্তী উপকার হল নিরাপদ যাত্রার জন্য Hanuman Chalisa পাঠ করা। এটি ব্যাপকভাবে বিশ্বাস করা হয় যে ভগবান শ্রী হনুমান হনুমানজিকে দুর্ঘটনা দূর করতে এবং যাত্রীদের সাথে যেতে সাহায্য করেন।

আপনি যদি কোন যাত্রার আগে হনুমান চালিসা পাঠ করেন বা আপনার হনুমান চালিসা থাকে তবে আপনার যাত্রা মসৃণ এবং নিরাপদ হবে।

এটা বিশ্বাস করা হয় যে কেউ যদি হনুমান চালিসার এই 40টি চৌপাই মনোযোগ সহকারে পাঠ করেন তবে তার সমস্ত বাধা দূর হয়ে যাবে এবং তার মন শীঘ্রই সমস্ত ইতিবাচক দিক দিয়ে পূর্ণ হবে।

৮. জ্ঞান ও শক্তি লাভ

জ্ঞান ও শক্তি লাভের জন্য হনুমান চালিসার পরবর্তী উপকারিতা। হনুমান চালিসার অর্থ এবং ভক্তিমূলক পাঠ আপনার চারপাশে এত ইতিবাচক শক্তি তৈরি করবে

সারাদিন নিজেকে অনেক জীবন্ত মনে হবে। এটি আপনার অলসতা, বিলম্বের মতো নেতিবাচক দিকগুলি দূর করার পাশাপাশি আপনাকে সারাদিন সক্রিয় এবং দক্ষ করে তোলে।

৯. আধ্যাত্মিক জ্ঞান অর্জন

আধ্যাত্মিক জ্ঞান অর্জনের জন্য হনুমান চালিসা। এটা সত্য যে আপনি যদি প্রতিদিন নিয়মিত হনুমান চালিসা পাঠ করেন তবে আপনি অনেক জ্ঞান অর্জন করতে পারবেন।

আপনি আধ্যাত্মিক রূপান্তর অনুভব করবেন এবং আপনার জীবনে আধ্যাত্মিক জ্ঞান লাভ করবেন। এটা সত্য যে যারা আধ্যাত্মিকতার পথে চলে তারা দ্রুত হনুমানজির আশীর্বাদ লাভ করে।

১০. চরিত্র ও ব্যাক্তিত্ব সংশোধন

হনুমান চালিসা (Bengali Hanuman Chalisa Lyrics) একজন ব্যক্তির চরিত্র বা ব্যক্তিত্ব উন্নত করতেও ব্যবহৃত হয়।যারা খারাপ সঙ্গে আছে বা অপমানজনক অভ্যাস গ্রহণ করেছে এবং সেই অপমানজনক অভ্যাসগুলি থেকে মুক্তি পেতে চায়,

এই হনুমান চালিসা পাঠ করা তাদের চরিত্র বা ব্যক্তিত্ব সংশোধনে সহায়তা করে। হনুমান চালিসা থেকে নির্গত শক্তি এই ভক্তদের হৃদয়কে ইতিবাচকতা বা ধর্মীয় শক্তি দিয়ে পূর্ণ করতে সহায়তা করে।

১১. ব্যবসায় উন্নতি

প্রতিদিন Hanuman Chalisa পাঠ করলে আপনার ব্যবসায় খুব দ্রুত উন্নতি হবে। আপনি যদি ব্যবসায়ী হন তবে আপনার প্রতিদিন অন্তত একবার হনুমান চালিসা পাঠ করা উচিত।

জীবনের যেকোনো খারাপ অভিজ্ঞতা থেকে মুক্তি পেতে হনুমান চালিসা পাঠ করা উচিত। এই সুবিধাগুলি ছাড়াও হনুমান চালিসার আরও অনেক উপকারিতা রয়েছে যা এই নিবন্ধে লেখা সম্ভব নয়।

হনুমান চলিশা পড়ার কিছু গুরুত্বপূর্ণ নিয়ম | Rules For Reading Hanuman Chalisa

যে কেউ Hanuman Chalisa পাঠ করতে পারেন তবে পাঠের কিছু বিশেষ নিয়ম রয়েছে, এই নিয়মগুলি মেনে চললে আমরা পূর্ণ ফল পেতে পারি।

হনুমানজিকে খুশি করার সবচেয়ে সহজ উপায় হল হনুমান চালিসা পাঠ করা। আপনি প্রতিদিন এটি পাঠ করতে পারেন, যদি আপনার সময় না থাকে তবে এটি মঙ্গলবারও পাঠ করুন এবং শনি গ্রহের লোকদের শনিবারও পাঠ করা উচিত।

হনুমান চলিশা পাঠ করার গুরুত্বপূর্ণ নিয়ম গুলি নিচে দেওয়া হলো।

Bengali Hanuman Chalisa Lyrics
Bengali Hanuman Chalisa Lyrics
  • হনুমান চালিসা (Bengali Hanuman Chalisa Lyrics)পাঠের সঠিক সময় হল সূর্যোদয়ের আগে অর্থাৎ সূর্যোদয়ের আগে ভোর চার থেকে পাঁচটার মধ্যে ব্রহ্মমুহুর্ত। এ সময় তেলাওয়াত করলে উপযুক্ত ফল বা উপকার পাওয়া যায়।
  • দিনের যে কোনো সময়ে হনুমান চালিসা পাঠ করলেও ফল পাওয়া যায় তবে আপনি যদি এই ব্রহ্ম মুহূর্তে অর্থাৎ সূর্যোদয়ের আগে পাঠ করতে পারেন তবে এই সময়ে সবকিছু শান্ত থাকে তাই আপনার মন সংযুক্ত থাকে।
  • হনুমান চালিসা পাঠ করার সময়, আপনি একটি ভাল জায়গায় বসবেন এবং বসার আগে সেই জায়গাটি ভালভাবে পরিষ্কার করুন। উত্তর বা পূর্ব দিকে মুখ করে হনুমান চালিসা পাঠ করতে হবে।
  • আপনি আপনার পূজা ঘরে বসে হনুমান চালিসা পাঠ করতে পারেন। স্নানের পর প্রতিবার হনুমান চালিসা পাঠ করতে ভুলবেন না।
  • আপনি সকালে এবং সন্ধ্যায় এটি করতে পারেন তবে যতবার আপনি এটি পাঠ করবেন, আপনাকে স্নান করতে হবে। পবিত্র হওয়ার পরে, পরিষ্কার কাপড় পরিধান করুন, তবে অনেকে গামছা দিয়ে হনুমান চালিসা পাঠ করেন যা সম্পূর্ণ ভুল নিয়ম।
  • লাল রঙের ধুতি পরে হনুমানজীর মূর্তির সামনে লাল রঙের আসনে বসে হনুমান চালিসা পাঠ করতে হবে।
  • হনুমান চালিসা পাঠ করার সময়, হনুমান চালিসা তখনই উচ্চারণ করুন যখন আপনি এটি স্পষ্টভাবে উচ্চারণ করবেন এবং এর অর্থ বুঝতে পারবেন।
  • মনে রাখবেন যে আপনি আপনার মনে হনুমান চালিসা যত ধীরে পাঠ করবেন, তত তাড়াতাড়ি আপনার মনের সাথে আপনার সংযোগ সম্পূর্ণ হবে।
  • হুট করে হনুমান চালিসা পাঠ করবেন না। এই দিনে নিরামিষ খাবার খান, মেঝেতে ঘুমান, মাছ, মাংস, ডিম, পেঁয়াজ, রসুন স্পর্শ করবেন না এবং অ্যালকোহল পান করবেন না।
  • একবার আপনি হনুমান চালিসা পাঠ করলে আপনি এটি 21 সপ্তাহ ধরে নিয়মিত করবেন। এই চালিসা পাঠ করার সময় সন্দেহে থাকবেন না। পাঠ শেষ না হওয়া পর্যন্ত অন্য কারো সাথে কথা বলবেন না।

হনুমানজীর কৃপায় আমাদের সকল মনোবাঞ্ছা পূর্ণ হয় এবং আমরা বিপদ ও ঝামেলা থেকে রক্ষা পাই। তিনি আমাদের জীবনে আকস্মিক দুর্ঘটনা থেকে আমাদের রক্ষা করেন।

বন্ধুরা, হনুমান চালিসা পাঠ করলে হনুমানজীর অপার আশীর্বাদ পাওয়া যায়।

সারাদিনে কতবার হনুমান চলিশা পাঠ করবেন ?  

হনুমান চালিসা 38 তম চৌপায়ে লিখা আছে 

জো শত বার পাঠ কর কোযী ।

ছূটহি বংদি মহা সুখ হোযী।

অর্থাৎ এখানে তিনি 100 বার হনুমান চালিসা পাঠ করতে বলেছেন কিন্তু আমাদের দৈনন্দিন জীবনে 100 বার হনুমান চালিসা পাঠ করা প্রায় অসম্ভব।

সেই পরিস্থিতিতে আমাদের কী করা উচিত? আমাদের হনুমান চালিসা কতবার পাঠ করা উচিত?

এ বিষয়ে বিভিন্ন বিশেষজ্ঞরা বিভিন্ন পরিসংখ্যান দিয়েছেন। কেউ বলে 21 বার, কেউ বলে 11 বার, কেউ বলে সাত বার, কেউ বলে তিনবার, আবার কেউ বলে দিনে একবার যথেষ্ট।

কিন্তু বাস্তবতা হল আপনি যতবার চান ততবার পাঠ করতে পারেন। কিন্তু যতবারই পড়ুন না কেন, মনোযোগ দিয়ে পড়তে হবে অন্যথায় কোনো লাভ হবে না।

হনুমান চলিশা কখন পাঠ করা উচিত?

আপনি আপনার সুবিধা অনুযায়ী যখন খুশি পড়তে পারেন। অনেকে সকালে কর্মস্থলে যাওয়ার আগে স্নান করে হনুমান চালিসা পাঠ করেন এবং অনেকে কাজ থেকে ফিরে স্নান করে হনুমান চালিসা পাঠ করেন।

অনেকেই রাতে ঘুমানোর আগে হনুমান চালিসা পাঠ করেন। তবে সকালে হনুমান চালিসা পাঠ করার একটি সুবিধা হল

আপনি যদি ভোরে স্নানের পরে 4 থেকে 5 টার মধ্যে হনুমান চালিসা পাঠ করতে পারেন তবে আপনার মন শান্ত হয় এবং আপনি আপনার মনের সাথে সংযোগ স্থাপন করে হনুমান চালিসা পাঠ করতে পারেন।

আপনি যে সময়েই পড়ুন না কেন, একটা কথা মনে রাখবেন যে আপনি প্রতিদিন একই সময়ে পড়বেন। 21 সপ্তাহ একটানা হনুমান চালিসা পাঠ করলে হনুমানজি আপনার ভক্তিতে প্রসন্ন হবেন।

এবং আপনার জীবনের সমস্ত ইচ্ছা পূরণ হবে এবং আপনি বিভিন্ন বিপদ এবং ঝামেলা থেকে মুক্ত থাকবেন।

হনুমান চলিশা সমন্ধিত FAQ

হনুমান চলিশা কখন পাঠ করা উচিত নয়?

হনুমান চালিসা পাঠের কোন সময়সীমা নেই। আপনি যখনই চান হনুমান চালিসা পাঠ করতে পারেন। কিন্তু, আপনি নোংরা পোশাক পরে, স্নান না করে বা অ্যালকোহলযুক্ত আমিষ খাবার খেয়ে হনুমান চালিসা পাঠ করতে পারবেন না।

100 বার হনুমান চালিসা পড়তে কত সময় লাগে?

একজন সাধারণ মানুষের পক্ষে 100 বার হনুমান চালিসা পাঠ করা প্রায় অসম্ভব। কিন্তু আপনার যদি হনুমানজির প্রতি অগাধ বিশ্বাস থাকে, তাহলে আপনি ৭-২১ দিনের মধ্যে 100 বার হনুমান চালিসা পাঠ করতে পারেন।


Share this article :

Leave a Comment